Galvus Met 50/850 এর কাজ খাওয়ার নিয়ম দাম ও পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া

Galvus met(Vildagliptin Inn and metformin Hydrochloride usp)
উপাদান: Galvus met 50/500 মিলিগ্রাম: প্রতিটি ফিল্ম কোটেড ট্যাবলেটে রয়েছে ভিলডাগ্লিপটিন আই এন এন ৫০ মিলিগ্রাম এবং মেটফরমিন হাইড্রোক্লোরাইড ইউএসপি ৫০০ মিলিগ্রাম।


Galvus met 50/850 মিলিগ্রাম: প্রতিটি ফিল্ম কোটেড ট্যাবলেটে রয়েছে ভিলডাগ্লিপটিন আই এন এন ৫০ মিলিগ্রাম এবং মেটফরমিন হাইড্রোক্লোরাইড ইউএসপি ৮৫০ মিলিগ্রাম।
আজ আমরা জানবো galvusmet এর কাজ কি খাওয়ার নিয়ম ও দাম সম্পর্কে

Galvus met 50/850 এর কাজ


টাইপ-২ ডায়াবেটিস রোগীদের ক্ষেত্রে:

গ্যালভাস মেট প্রাপ্তবয়স্ক টাইপ-২ ডায়াবেটিস রোগীদের গ্লুকোজ নিয়ন্ত্রণের জন্য খাদ্য ও ব্যায়ামের সাথে সংযোজিত ব্যবস্থাপনায় নির্দেশিত।

গ্যালভাস মেট টাইপ-২ ডায়াবেটিস রোগীদের গ্লুকোজ নিয়ন্ত্রণের জন্য প্রাথমিকভাবেও নির্দেশিত যখন খাদ্য ও ব্যায়াম এককভাবে পর্যাপ্ত গ্লুকোজ নিয়ন্ত্রণ করতে পারে না।

  1. যখন মেটফরমিন বা ভিলডাগ্লিপটিন এককভাবে পর্যাপ্ত গ্লুকোজ নিয়ন্ত্রণ করতে পারে না বা যাদের ইতিমধ্যে মেটফরমিন বা ভিলডাগ্লিপটিন এর পৃথক ট্যাবলেটের মাধ্যমে চিকিৎসা শুরু করা হয়েছে তাদের গ্লুকোজ নিয়ন্ত্রণের জন্য গ্যালভাস মেট নির্দেশিত।
  2. যখন ইনসুলিন ও অন্য সমন্বিত ব্যবস্থাপনা পর্যাপ্ত গ্লুকোজ নিয়ন্ত্রণ করতে পারে না তখন গ্যালভাস মেট সমন্বিত ব্যবস্থাপনায় গ্লুকোজ নিয়ন্ত্রণ করতে পারে।

Galvasmet 50/850 খাওয়ার নিয়ম


টাইপ -২ ডায়াবেটিস রোগীদের ক্ষেত্রে ওষুধের কার্যকারিতা ও সহনশীলতার ওপর ভিত্তি করে এন্টি ডায়াবেটিক থেরাপি ব্যক্তি বিশেষায়িত হওয়া উচিত।

গ্যালভাস মেট গ্রহণের ক্ষেত্রে ভিলডাগ্লিপটিন দৈনিক ১০০ মিলিগ্রামের বেশি গ্রহণ উচিত নয়।


গ্যালভাস মেটের নির্দেশিত প্রাথমিক ডোজ রোগীর অবস্থা বা ভিলডাগ্লিপটিন ও মেটফরমিনের চলমান রেজিমেনের উপর ভিত্তিতে নির্ধারণ করা উচিত।

এককভাবে ভিলডাগ্লিপটিন সেবনের পরেও অনিয়ন্তিত ডায়াবেটিস রোগীদের ক্ষেত্রে গ্যালভাস মেটের প্রারম্ভিক মাত্রা:

মেটফরমিন হাইড্রোক্লোরাইডের প্রারম্ভিক মাত্রার ( ৮৫০ মিলিগ্রাম দৈনিক একবার) ভিক্তিতে গ্যালভাস মেট দৈনিক একবার হতে পারে এবং ওষুধের কার্যকারিতা এর উপর ভিত্তিতে এর মাত্রা পরিবর্তন করতে হবে।

আরো জানুন  Calboral dx এর কাজ কি | calboral dx

এককভাবে মেটফরমিন হাইড্রোক্লোরাইডের সেবনের পরেও অনিয়ন্ত্রিত ডায়াবেটিস রোগীদের ক্ষেত্রে গ্যালভাস মেট-এর প্রারম্ভিক মাত্রাঃ

রোগীর বর্তমান মেটফরমিন হাইড্রোক্লোরাইডের মাত্রার ভিত্তিতে গ্যালভাস মেট এর প্রাথমিকভাবে ৫০/৫০০ মি.গ্রা., ৫০/৮৫০ মি.গ্রা. বা ৫০/১০০০ মি.গ্রা. ট্যাবলেট দৈনিক দুইবার সেবন করা যেতে পারে।

ভিলডাগ্লিপটিন ও মেটফরমিন-এর পৃথক ট্যাবলেট সেবনকারীদের গ্যালভাস মেট শুরু করার প্রাথমিক ডোজ হচ্ছে:


যারা ইতিমধ্যে ভিলডাগ্লিপটিন বা মেটফরমিন গ্রহণ করেছে, তাদের ক্ষেত্রে সেবনকৃত ডোজের ভিত্তিতে গ্যালভাস মেট এর প্রাথমিক ডোজ হচ্ছে ৫০/৫০০ মি.গ্রা., ৫০/৮৫০ মি.গ্রা. বা ৫০/১০০০ মি.গ্রা. ট্যাবলেট দৈনিক দুইবার।

ভিলডাগ্লিপটিন ও মেটফরমিন অব্যবহারকারীদের ক্ষেত্রে গ্যালভাস মেট শুরু করার প্রাথমিক ডোজ হচ্ছে:


যারা ইতিপূর্বে ভিলডাগ্লিপটিন বা মেটফরমিন গ্রহণ করে নাই, তাদের ক্ষেত্রে গ্যালভাস মেট এর প্রারম্ভিক মাত্রা ৫০/৫০০ ট্যাবলেট দৈনিক একবার হতে পারে এবং ঔষধের কার্যকারিতার উপর ভিত্তিতে এর মাত্রা সর্বোচ্চ ৫০/১০০০ দৈনিক দুই বার হতে পারে।


সমন্বিত চিকিৎসায় সালফোনাইল ইউরিয়া বা ইনসুলিনের সাথেঃ

সমন্বিত চিকিৎসায় গ্যালভাস মেট-এর ডোজ এমন হওয়া উচিত যা, ভিলডাগ্লিপটিন দৈনিক ৫০ মি.গ্রা. দুইবার (দৈনিক মাত্রা মোট ১০০মি. গ্রা.) বা মেটফরমিন পূর্বের সেবনকৃত ডোজের সমপরিমান যোগান দেয়।


সাধারণ রোগীদের ক্ষেত্রেঃ

১৮ বছর বয়স বা তার বেশী

বিশেষ রোগীদের ক্ষেত্রেঃ

কিডনীর অপর্যাপ্ত কার্যক্ষমতাসম্পন্ন রোগীদের ক্ষেত্রেঃ


যেসব রেনাল বৈকল্য রোগীদের ক্রিয়েটিনীন ক্লিয়ারেন্স ৬০-৯০ মিলি/মিনিট তাদের ক্ষেত্রে গ্যালভাস মেট-এর ডোজ পরিবর্তন করতে হয়। 
ক্রিয়েটিনীন ক্লিয়ারেন্স ৬০-৯০ মিলি/মিনিট-এর কম রেনাল বৈকল্য রোগীদের ক্ষেত্রে গ্যালভাস মেট প্রতিনির্দেশিত (প্রতিনির্দেশনা, সতর্কতা, সাবধানতা ও ক্লিনিক্যাল ফার্মাকোলজি অংশটি পড়ুন)।


যকৃতের অপর্যাপ্ত কার্যক্ষমতাসম্পন্ন রোগীদের ক্ষেত্রেঃ

চিকিৎসা শুরুর পূর্বে যেসব রোগীর এএলটি বা এএসটি এর মাত্রা স্বাভাবিকের চেয়ে ২.৫ গুন বেশী তাদের জন্য গ্যালভাস মেট নির্দেশিত নয় (সতর্কতা ও সাবধানতা অংশটি পড়ুন)।


শিশু রোগীদের ক্ষেত্রেঃ

শিশুদের ক্ষেত্রে ব্যবহারের জন্য গ্যালভাস মেট-এর নিরাপত্তা ও কার্যকারিতা নিশ্চিত করা যায়নি। তাই গ্যালভাস মেট ১৮ বছরের কম বয়সের রোগীদের জন্য নির্দেশিত নয়।


বয়ষ্ক রোগীদের ক্ষেত্রেঃ

যেহেতু মেটফরমিন কিডনী দ্বারা নিষ্কাশিত হয় এবং বয়স্ক মানুষদের কিডনীর কার্যক্ষমতা হ্রাস পায়, তাই বয়স্ক রোগীদের গ্যালভাস মেট দ্বারা চিকিৎসা করার সময় নিয়মিত কিডনীর কার্যক্ষমতা মনিটরিং করতে হবে। 
কিডনীর কার্যক্ষমতার উপর ভিত্তি করে বয়ষ্ক রোগীদের জন্য গ্যালভাস মেট-এর ডোজ সমন্বয় করতে হবে (প্রতিনির্দেশনা, সতর্কতা ও সাবধানতা অংশটি পড়ুন)।


সেবন বিধিঃ


মুখে সেবন: গ্যালভাস মেট খাবারের সাথে গ্রহণ করতে হয়ে, মেটফরমিন হাইড্রোক্লোরাইড-এর অস্ত্রে পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া কমানোর জন্য। 
কোন ডোজ খেতে ভুলে গেলে, মনে হওয়ার সাথে সাথে সেবন করতে হবে। একই দিনে দ্বিগুন ডোজ সেবন করা উচিত নয়।


Galvus Met 50/850 এর কাজ খাওয়ার নিয়ম দাম ও পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া

Galvus met 50/850 price-দাম

প্রতি পিস ট্যাবলেটের দাম ৩৪ টাকা

এক পাতা ট্যাবলেটের দাম: ৩৪০ টাকা

প্রতিনির্দেশনাঃ

যেসব রোগীদের ভিলভাগ্লিপটিন বা মেটফরমিন বা এর অন্য যেকোন সহযোগী উপাদানের প্রতি অতিসংবেদনশীলতা আছে, তাদের জন্য গ্যালভাস মেট নির্দেশিত নয় (সহযোগী উপাদানের অংশটি পড়ুন)।

কিডনীর অপর্যাপ্ত কার্যক্ষমতাসম্পন্ন রোগীদের ক্ষেত্রেঃ ক্রিয়েটিনীন ক্লিয়ারেন্স ৬০-৯০ মিলি/মিনিট-এর কম রেনাল বৈকল্য রোগীদের ক্ষেত্রে গ্যালভাস মেট প্রতিনির্দেশিত (প্রতিনির্দেশনা, সতর্কতা, সাবধানতা ও ক্লিনিক্যাল ফার্মাকোলজি অংশটি পড়ুন)।

আরো জানুন Marincal dx price in banglasesh

কনজেসটিভ হার্ট ফেইলর রোগীদের ক্ষেত্রেঃ

যেসব কনজেসটিভ হার্ট ফেইলর রোগীদের ফার্মাকোলজিক্যাল চিকিৎসা প্রয়োজন তাদের ক্ষেত্রে গ্যালভাস মেট প্রতিনির্দেশিত।

মেটাবলিক কিটোএসিডোসিস:

ভায়াবেটিক কিটোএসিডোসিসসহ একিউট বা ক্রনিক মেটাবলিক এসিডোসিস

রোগীদের ক্ষেত্রে গ্যালভাস মেট প্রতিনির্দেশিত।

ডায়াবেটিক কিটোএসিডোসিসরোগীদের ইনসুলিন দ্বারা চিকিৎসা করানো উচিত।


ব্যবহারে বিশেষ সতর্কতা ও সাবধানতা

সাধারন সতর্কতা ও সাবধানতাঃ


ইনসুলিন প্রয়োজনীয় রোগীর জন্য গ্যালভাস মেট ইনসুলিনের বিকল্প নয়। গ্যালভাস টাইপ-১ ডায়াবেটিস রোগীদের ও ডায়াবেটিক কিটোএসিডোসিস চিকিৎসায় ব্যবহার
করা উচিত নয়।

যকৃতের অপর্যাপ্ত কার্যক্ষমতাসম্পন্ন রোগীদের ক্ষেত্রে ব্যবহার:

ভিলডাগ্লিপটিন ও যেসব রোগীর যকৃতের কার্যক্ষমতা কম, বিশেষ করে যারা এএলটি বা এএসটি এর মাত্রা স্বাভাবিকের চেয়ে ২.৫ গুন বেশী থাকার কারনে চিকিৎসারত, তাদের জন্য গ্যালভাস মেট নির্দেশিত নয়।

যকৃতের এনজাইমের পর্যবেক্ষণঃ

খুব কম সংখ্যক রোগীদের মধ্যে গ্যালভাস ব্যবহারে জন্ডিস ও যকৃতের
কার্যক্ষমতাহীন হয়ে যাওয়া পরিলক্ষিত হয়। এ অবস্থায়, রোগীদের ক্লিনিক্যাল পরিনতি ছাড়া কোন লক্ষনই প্রকাশ পায় না এবং গ্যালভাস দ্বারা চিকিৎসা বন্ধ করার পর এলএফটি মাত্রাও স্বাভাবিক হয়ে যায়। গ্যালভাস মেট দ্বারা চিকিৎসার আগেই এলএফটির পরীক্ষা করতে হবে।

যেসব রোগীর যকৃতের কার্যক্ষমতা কম, বিশেষ করে যারা এএলটি বা এএসটি এর মাত্রা স্বাভাবিকের চেয়ে ২.৫ গুন বেশী থাকার কারনে চিকিৎসারত, তাদের জন্য গ্যালভাস মেট নির্দেশিত নয়। 

গ্যালভাস মেট দ্বারা চিকিৎসা শুরুর পর রোগীর এলএফটি পরীক্ষা করতে হবে পরবর্তীতে যা, প্রথম বছরে ৩ মাস পরপর এবং পরবর্তীতে পর্যায়ক্রমে। 
যেসব রোগীদের ট্রান্সএমিনেজ লেভেল বেড়ে যায় তাদের লিভারের নিশ্চিত অবস্থা জানার জন্য অন্য টেস্টগুলোও করতে হয় এবং পরবর্তীতে এদের লেভেল স্বাভাবিক না হওযা পর্যন্ত বারবার পরীক্ষা করে দেখতে হয়। 
এএলটি বা এএসটি এর মাত্রা স্বাভাবিক মাত্রা থেকে ৩.০ গুন বেশী হলে অথবা এই বর্ধিত মাত্রা দীর্ঘ দিন থাকলে গ্যালভাস দ্বারা চিকিৎসা বন্ধ করে দিতে হবে। 

যাদের জন্ডিস ও যকৃতের কার্যক্ষমতাহীনতার বিভিন্ন লক্ষন প্রকাশ পায় তাদের গ্যালভাস মেট দ্বারা চিকিৎসা বন্ধ করে দিতে হবে এবং অতি দ্রুত ডাক্তারের সরনাপন্ন হতে হবে। 
গ্যালভাস মেট দ্বারা চিকিৎসা বন্ধ করার পর এলএফটি স্বাভাবিক হওয়ার পর পুনরায় গ্যালভাস মেট দ্বারা চিকিৎসা শুরু করা উচিৎ নয়। যকৃতের অপর্যাপ্ত কার্যক্ষমতাসম্পন্ন রোগীদের ক্ষেত্রে গ্যালভাস মেট নির্দেশিত নয়।

হার্ট ফেইলর রোগীর ক্ষেত্রেঃ

যেসব রোগীদের এনওয়াইএইচএ ফাংশনাল ক্লাস ফোর রয়েছে, তাদের উপর গ্যালভাসের কোন গবেষনা করা হয়নি, তাই এসব রোগীদের জন্য গ্যালভাস নির্দেশিত নয়।


মেটফরমিন হাইড্রোক্লোরাইড:
রেনাল ফাংশন মনিটরিং:


মেটফরমিন হাইড্রোক্লোরাইড কিডনীর মাধ্যমে নিষ্কাশিত হয়। মেটফরমিন হাইড্রোক্লোরাইড জড়ো হওয়ার ঝুঁকি এবং ল্যাকটিক এসিডোসিস কিডনীর কার্যক্ষমতার বৈকল্যতাকে বাড়িয়ে দেয়।


যকৃতের অপর্যাপ্ত কার্যক্ষমতাসম্পন্ন রোগীদের ক্ষেত্রে ব্যবহারঃ

মেটফরমিন হাইড্রোক্লোরাইডের সেবনের ফলে ল্যাকটিক এসিডোসিস হয়, যার ফলে কিছু ক্ষেত্রে যকৃতের কার্যক্ষমতায় বৈকল্য দেখা দেয়। ক্লিনিক্যাল ও ল্যাবরেটরী পরীক্ষায় যাদের যকৃতের রোগ ধরা পরেছে, তাদের ক্ষেত্রে গ্যালভাস মেট পরিহার করা উচিত।


হাইপোগ্লাইসেমিয়াঃ

শুধুমাত্র গ্যালভাস মেট গ্রহনের ফলে হাইপোগ্লাইসেমিয়া হয় না। তবে, যখন ক্যালোরি গ্রহণ কমে যায় বা ক্যালোরি সাপ্লিমেন্ট বা ইথানল দ্বারা তীব্র ব্যায়ামের ঘাটতি পূরণ হয়না, তখন হাইপোগ্লাইসেমিয়া হতে পারে।

রক্তের গ্লুকোজ নিয়ন্ত্রণ হ্রাসের ক্ষেত্রেঃ

ডায়াবেটিক রোগীর অন্য কোন অসুখ যেমন-জ্বর, ট্রমা, ইনফেকশন বা অপারেশনের পরে রক্তের গ্লুকোজ নিয়ন্ত্রণ হ্রাস পায়। 
এসব ক্ষেত্রে গ্যালভাস মেট সাময়িকভাবে বন্ধ করে রোগীকে ইনসুলিন দিতে হয়। এসব সমস্যা দূর হওয়ার পর গ্যালভাস মেট পুনরায় সেবন করা যেতে পারে।


Galvus Met এর পার্শ্বপ্রতিক্রিয়াঃ 

নিরাপত্তা প্রোফাইলের সংক্ষিপ্তসার

গ্যালভাস মেট এখানে ভিলডাগ্লিপটিন ও মেটফরমিন এককভাবে ও একত্রে ব্যবহারের ফলাফল
প্রকাশ করা হয়েছে। ভিলভাগ্লিপটিন ব্যবহারে বিরল ক্ষেত্রে এনজিওএডেমা দেখা যায়। 
ভিলভাগিপ্লটিনের সাথে এনজিওটেনসিন কনভার্টিং এনজাইম যুগপৎভাবে ব্যবহার করলে এর মাত্রা বেড়ে যায়। 
বেশির ভাগ সমস্যার তিব্রতা খুবই কম এবং চিকিৎসা চললে এগুলো দূর হয়ে যায়। ভিলভাগ্লিপটিনের গ্রহনের ফলে সাধারনত যেসব পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া লক্ষ্য করা যায়

ও মাথাব্যাথা। ইনসুলিনের সাথে (মেটফরমিনসহ কমে যাওয়া ইত্যাদি পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া লক্ষ্য করা যায়। সালফোনাইলইউরিয়া ও সেগুলো হলো-কাপুনি, মাথা ঘোরা বা ছাড়া) ভিলভাগ্লিপটিনের গ্রহনের ফলে সাধারনত মাথা ব্যাথা, 
শরীর ঠান্ডা হয়ে যাওয়া , বমি বমি ভাব, গ্যাস্ট্রোইসোফেজিয়াল ডিজিস ও রক্তের গ্লুকোজের পরিমান মেটফরমিন এর সাথে ভিলডাগ্লিপটিনের গ্রহন করলে মাথা ঘোরা, কম্পন, এস্থেনিয়া, হাইপোগ্লাইসেমিয়া ও হাইপেরিড্রোসিস পরিলক্ষিত হয়। মেটফরমিন হাইড্রোক্লোরাইড গ্রহণের ফলে জিহবার স্বাদ নষ্ট হয়ে যাওয়া পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া লক্ষ্য করা যায়।


বিপনন পরবর্তী অভিজ্ঞতাঃ

ঔষধ বাজারজাতকরনের পর নিম্নলিখিত পার্শ্বপ্রতিক্রিয়াগুলো পরিলক্ষিত হয়:

• খুব কম সংখ্যক লোকের হেপাটাইটিস পরিলক্ষিত হয় এবং ঔষধ সেবন বন্ধ
করলে তা কমে যায়।
• পেনক্রিয়াটাইটিস
• আর্টিকেরিয়া, বোলাস পেমফিগয়েড সহ আঁশের মত ত্বকের ক্ষত
• মাঝে মাঝে তীব হাড়ে ব্যাখা হতে পারে।

অন্যান্য ওষুধের সাথে প্রতিক্রিয়া

ভিলভাগ্লিপটিনঃ ভিলডাগ্লিপটিন এর অন্য ঔষধের সাথে প্রতিক্রিয়ার সম্ভাবনা কম। কারন ভিলডাগ্লিপটিন সাইট্টোক্রোম ৪৫০ এনজাইমের সাবস্ট্রেট বা প্রতিবন্ধক বা প্রভাবক নয়। 
এমনকি সাইট্রোক্রোম ৪৫০ এনজাইমের সাবস্ট্রেট বা প্রতিবন্ধক বা প্রভাবকের সাথে এর কোন প্রতিক্রিয়া পরিলক্ষিত হয় না।

মেটফরমিন হাইড্রোক্লোরাইড ৪ মেটফরমিনের ফিউরেসেমাইড, নিফেডিপিন, গ্লাইবুরাইড, ক্যাটায়নিক ড্রাগ (যেমন-এমিলোরাইড, ডিগক্সিন, মরফিন, প্রোকেইনামাইড, কুইনিডিন, কুইনাইন, রেনিটিডিন, ট্রায়ামটেরিন, ট্রাইমেথোপ্রিম বা বেংকোমাইসিন) এবং অন্যান্য ড্রাগ যেমন-থায়াযাইডস, ও অন্যান্য ডাইইউরেটিকস, 
কর্টিকোস্টেরয়েড, ইস্ট্রোজেন, ওরাল কন্ট্রাসেপটিভ, ফিনাটইন, নিকোটিনিক এসিড, ক্যালসিয়াল চ্যানেল ব্লকারস এবং আইসোনিয়াজাইভস জাতীয় ঔষধের সাথে প্রতিক্রিয়া পরিলক্ষিত হয়।


গর্ভাবস্থায় ব্যবহার:

গ্যালভাস মেট গর্ভবর্তী মহিলাদের গ্রহণ করা উচিত নয়, যদি গর্ভবর্তী মহিলাদের উপর এর উপকারিতা ভ্রূণের বৃদ্ধিতে মারাত্মক ঝুঁকির চেয়ে বেশি না হয়।

স্তন্যদানকালে ব্যবহার:

গ্যালভাস মেট স্তন্যদানকারী মায়েদের সেবন থেকে বিরত থাকা উচিত।


উর্বরতার ক্ষেত্রে
: মানুষের উর্বরতায় গ্যালভাস মেট-এর কোন প্রভাব আছে কিনা তা পরীক্ষা করা
হয়নি।

অতিমাত্রা:

লক্ষনসমূহ: ভিলভাগ্লিপটিনঃ কিছু সংখ্যক সুস্থ মানুষকে (প্রতি গ্রুপে সাত থেকে চৌদ্দ জন) গ্যালভাস দৈনিক ২৫, ৫০, ১০০, ২০০, ৪০০ ও ৬০০ মি. গ্রা. একবার করে পর্যায়ক্রমে দশদিন পর্যন্ত গ্রহণ করানো হয়েছিল। ২০০ মি. গ্রা. ভোজেস পর্যন্ত সহনীয় ছিল। 

ডোজেস ৪০০ মি. গ্রা. এ তিনজনের মাংস পেশীতে ব্যাথা এবং প্রত্যেকের ক্ষেত্রে মৃদু ও ক্ষনস্থায়ী পেরেস্থেশিয়া, জ্বর, এডেমা এবং লাইপেজ লেবেল। (ইউএলএন এর লেবেল দ্বিগুন) স্বল্প সময়ের জন্য বেড়ে যায়। 

ডোজেস ৬০০ মি. গ্রা. এ একজনের হাত ও পা পানি জমে ফুলে যায়, ক্রিয়েটিনিন ফসফোকাইনেজ (সিপিকে) লেবেল অতিরিক্ত পরিমাণ বেড়ে যায় এবং এর সাথে এসপারটেট এমিনেট্রান্সফারেজ (এএসটি), সি রিয়েকটিভ প্রোটিন ও মায়োগ্লোবিন এর লেবেল বেড়ে যায়। 
এই গ্রুপের তিন জনের দুই পায়ে পানি জমে ফুলে যায় ও দুই জনের পেরেস্থেশিয়া হয়। ঔষধ বন্ধ করার পর সকল লক্ষনসমূহ ও অন্যান্য অস্বাভাবিকতা দূরীভূত হয়।

মেটফরমিন হাইড্রোক্লোরাইড:
মেটফরমিন হাইড্রোক্লোরাইড ৫০ গ্রামের বেশী গ্রহণ করলে অতিমাত্রা হয় এবং ১০% রোগীদের হাইপোগ্লাইসেমিয়া হয়। কিন্তু মেটফরমিন হাইড্রোক্লোরাইডের সাথে অতিমাত্রার কোন সম্পর্ক বের করা সম্ভব হয়নি।

ক্লিনিক্যাল ফার্মাকোলজি:

কর্ম প্রক্রিয়া:

গ্যালভাস মেট টাইপ-২ ডায়াবেটিস রোগীদের গ্লুকোজ নিয়ন্ত্রণের জন্য দুইটি ভিন্ন কর্ম প্রক্রিয়ার এন্টিহাইপারগ্লাইসেমিক এজেন্টকে একত্রিত করেছে। এতে রয়েছে ভিলভাগ্লিপটিন, ডিপিপি-৪ (ডাইপেপটাইডাল পেপডাইডেজ-৪)-এর প্রতিবন্ধক শ্রেণীর সদস্য এবং মেটফরমিন হাইড্রোক্লোরাইড, বাইগুয়ানাইড শ্রেণীর সদস্য। 

ভিলডাগ্লিপটিন আইলেটস উদ্দীপক শ্রেণীর সদস্য এবং ইহা সুনির্দিষ্ট ও শক্তিশালী ডাইপেপটাইডাল পেপডাইডেজ-৪ (ডিপিপি-৪) এর প্রতিবন্ধক যা গ্লুকোজকে নিয়ন্ত্রন করতে পারে। ভিলভাগ্লিপটিন দ্বারা ডিপিপি-৪ এনজাইমের কার্যকারিতা। 

বাধাগ্রস্থ হওয়ার ফলে খালি পেটে ও খাওয়ার পরে ইনক্রিয়েটিন হরমোন জিএলপি-১ (গ্লুকাগন লাইক পেপটাইড-১) ও জিআইপি (গ্লুকোজ ডিপেন্ডেন্ট ইনসুলিনোট্রপিক পলিপেপটাইড) এর এন্ডোজেনাস লেবেল বেড়ে যায়।

মেটফরমিন হাইড্রোক্লোরাইড যকৃতের গ্লুকোজ উৎপাদন হ্রাস করে, অস্ত্রের গ্লুকোজ শোষন হ্রাস করে এবং ইনসুলিনের সংবেদনশীলতা বৃদ্ধির মাধ্যমে পেরিফেরাল গ্লুকোজ আপটেক ও ব্যবহার বৃদ্ধি করে।

মেটফরমিন হাইড্রোক্লোরাইড গ্লাইকোজেন সিনথেজ এর উপর কাজ করে কোষের ভিতর গ্লাইকোজেন উৎপাদন বৃদ্ধি করে এবং নির্দিষ্ট ধরনের মেমব্রেন গ্লুকোজ ট্রান্সপোর্টারের (গ্লট-১ ও ফ্রুট-৪) পরিবহন সক্ষমতা বৃদ্ধি করে।

ফার্মাকোকাইনেটিকস:

শোষনঃ

ভিলডাগ্লিপটিনঃ খালি পেটে ভিলডাগ্লিপটিন গ্রহণ করলে দ্রুত শোষিত হয় এবং প্লাজমাতে ১.৭৫ ঘন্টা পরে সর্বোচ্চ পরিমান পাওয়া যায়। খাবারের সাথে চিলভাগ্লিপটিন সেবন করলে শোসনের হার কমে যায় এবং প্লাজমাতে এর মাত্রা ১৯% কমে যায়। এছাড়া প্লাজমাতে ২.৫০ ঘন্টা পরে সর্বোচ্চ পরিমান পাওয়া যায়।

মেটফরমিন: খালি পেটে ৫০০ মি. গ্রা. মেটফরমিন হাইড্রোক্লোরাইড গ্রহন করলে শরীরে এর শোষন হয় ৫০%-৬০%। একক মাত্রার ওরাল মেটফরমিন হাইড্রোক্লোরাইড ৫০০মি.গ্রা. থেকে ১৫০০মি.গ্রা এবং ৮৫০মি.গ্রা, থেকে ২৫৫০ মি.গ্রা. ট্যাবলেট গ্রহণ করে

পরীক্ষায় দেখা যায় যে, গ্রহনের মাত্রা বৃদ্ধির সাথে সাথে শোষনের মাত্রা বৃদ্ধি পায় না, কারন নিষ্কাশন পরিবর্তনের সাথে সাথে শোষন ও কমে যায়।


বন্টন:
ভিলভাগ্নিপটিন। ভিলভাগ্লিপটিন এর প্লাজমা প্রোটিনের সাথে সংযুক্ত হবার ক্ষমতা কম (৯.৩%) এবং এটি প্লাজমা ও লোহিত রক্তকনিকার সাথে সমভাবে বন্টিত হয়। 

মেটফরমিন ও মেটফরমিন হাইড্রোক্লোরাইড সালফোনাইল ইউরিয়া, যা ৯০% বেশী প্রোটিন বাউন্ড-এর তুলনায় খুবই সামান্য পরিমানে প্রোটিনের সাথে সংযুক্ত করে। 

নিঃসরণ ও নিষ্কাশনঃ
ভিলভাগ্লিপটিন: ভিলভাগ্লিপটিন মুখে সেবন করার পর ৮৫% মূত্রের মাধ্যমে ও ১৫% মলের মাধ্যমে নিষ্কাশিত হয়।
মেটফরমিন। মেটফরমিন হাইড্রোক্লোরাইড অপরিবর্তিত অবস্থায় মূত্রের মাধ্যমে নিষ্কাশিত হয়। এটি হেপাটিক মেটাবলিজম ও। হয় না বা বিলিয়ারি এক্সক্রিয়েশন হয় না।
Next Post Previous Post